1. rashidarita21@gmail.com : bastobchitro :
টেস্ট বাণিজ্যে বিপন্ন চিকিৎসাসেবা | Bastob Chitro24
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৯:৪৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
বিজেপি ৪০০ পার করলে, পাক অধিকৃত কাশ্মীর ভারতের অংশ হয়ে যাবে ডেঙ্গু নিয়ে মিথ্যাচার করছেন মেয়র তাপস: সাঈদ খোকন বাজারভিত্তিক সুদহারে হস্তক্ষেপের ইঙ্গিত বাংলাদেশ ব্যাংকের কুষ্টিয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমী কালচারাল অফিসার সুজন রহমানের পারিবারিক সংগঠনের সন্ধান ১৩৯ উপজেলায় দলীয় প্রতীকহীন ভোট আজ সহিত্যিক মীর মোশাররফ স্কুলের প্রাচীর সংস্কার হচ্ছে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে। সরকারি মালিকানাধীন ২৮টি শিল্পপ্রতিষ্ঠান লোকসানে চলছে হজের ভিসায় নতুন বিধি-নিষেধ জারি গুণী শিক্ষক মোসা. আখতার বানুর অবসজনিত বিদায় অনুষ্ঠান রাজশাহী ইউনিভার্সিটি এক্স স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনের ক্যাপ বিতরণ

টেস্ট বাণিজ্যে বিপন্ন চিকিৎসাসেবা

ঢাকা অফিস
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৯ জুলাই, ২০২২

দীর্ঘদিন পিঠের ব্যথায় ভুগছিলেন ফেরদৌসী বেগম (৪৮)। ব্যথা তীব্র হলে গ্রাম থেকে ঢাকায় এসে বেসরকারি ক্লিনিকে এক চিকিৎসকের অ্যাপয়েন্টমেন্ট নিয়ে দেখাতে যান। চিকিৎসক সমস্যা শুনে প্রথমে বেশ কিছু টেস্ট, এক্স-রে করে নিয়ে আসতে বলেন। সেই হাসপাতালে বিল পরিশোধের সময় কী কী টেস্ট দিয়েছেন জিজ্ঞেস করলে বিল কাউন্টার থেকে বলা হয়, বিভিন্ন টেস্টের সঙ্গে হাঁটুর হাড়ের এক্স-রে করতে দিয়েছেন।

ফেরদৌসী বেগম বলেন, ‘আমি বিল পরিশোধ না করে পুনরায় চিকিৎসকের কাছে পিঠের ব্যথায় পায়ের এক্স-রের বিষয়ে জিজ্ঞেস করলে চিকিৎসক ভীষণ বিরক্ত হন। তিনি যে টেস্টগুলো দিয়েছেন তার প্রয়োজনীয়তা আমাকে না বুঝিয়ে বরং বলেন “চিকিৎসক কে- আপনি না আমি? যেগুলো দিয়েছি সে টেস্টগুলো করে নিয়ে আসেন, পছন্দ না হলে অন্য চিকিৎসককে দেখান।” অন্য রোগী, তাদের স্বজনদের সামনে আমাকে এভাবে অপমান করেন। আমি ভীষণ কষ্ট পাই। টেস্ট না করিয়ে ফিরে আসি। পরে আমার এক প্রতিবেশীর সঙ্গে ভারতে গিয়ে চিকিৎসা করিয়ে এসেছি। চিকিৎসক কিংবা টেস্টে হয়তো পার্থক্য নেই কিন্তু তাদের ব্যবহার অনেক আন্তরিক। ব্যবস্থাপনা ভালো। আমার সমস্যা মনোযোগ দিয়ে শুনে তিনটি টেস্ট দিয়েছিলেন। সেগুলো কেন দিচ্ছেন তা-ও বুঝিয়ে দিয়েছেন আমি জিজ্ঞেস করার আগেই। এরপর রিপোর্ট দেখালে কোনটা কী ওষুধ তা-ও বলে দিয়েছেন। সেবা নিয়ে আমি স্বস্তিবোধ করেছি।’ গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘আমাদের চিকিৎসকদের অনেকের একটা বদভ্যাস আছে। রোগী টেস্ট কিংবা ওষুধের বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন “আপনি কি ডাক্তার?” রোগীদের অবশ্যই তাকে দেওয়া টেস্ট ও ওষুধ সম্পর্কে জানার অধিকার আছে। রোগীদের এ অধিকার আদায়ে প্রতিবাদী হতে হবে। রোগীদের দাবি করতে শিখতে হবে। টেস্টের দাম নির্ধারণ করা জরুরি। আমরা গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে স্বল্পমূল্যে টেস্ট করাই দেখে রোগীরা ভাবেন আমাদের টেস্টের মান ভালো না। অথচ একই টেস্ট করিয়ে আমার হাসপাতালের গা-লাগোয়া হাসপাতাল লাখ টাকা তুলে নেয়। এজন্য রোগীদেরও সচেতন হতে হবে।’
বেসরকারি এক প্রতিষ্ঠানের কর্মী শামীমা আক্তার। তার ১৬ বছরের ছেলে ইয়াসিন বেশ কিছু দিন ধরে মাথাব্যথা করছে বলে জানাত। মাঝেমধ্যেই বমি করত। একদিন বমি করে অজ্ঞান হয়ে পড়লে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসককে দেখান। টেস্ট করিয়ে চিকিৎসকরা জানান সে ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত, দ্রুত অপারেশন করতে হবে। অপারেশন শেষে বেড না থাকায় মেঝেতেই ছেলেকে নিয়ে ছিলেন শামীমা। তিনি বলেন, ‘অপারেশনের পর দিন রাতে বেশ কিছু ওষুধ দেওয়া হয়েছিল। এর মধ্যে একটা ওষুধ খাওয়াতেই ছেলে খুব অস্থির হয়ে উঠছিল। ছেলের এ অবস্থা দেখে রাতে জরুরি দায়িত্বে থাকা চিকিৎসককে ঘুম থেকে তুলে জিজ্ঞেস করলে তিনি রেগে গিয়ে বলেন ফার্মেসিতে গিয়ে জিজ্ঞেস করেন এটা কীসের ওষুধ। নার্সকে ডাকলে তারা আমার স্বামীর সঙ্গে খুব খারাপ ব্যবহার করে বলেন বারবার বিরক্ত করলে আনসার ডেকে বের করে দেব। ওইদিন ভোররাতে মারা যায় আমার ছেলেটা।’

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও হেলথ অ্যান্ড হোপ হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, ‘একজন চিকিৎসক রোগীর জন্য যে ওষুধ ও পরীক্ষা লিখবেন তা অবশ্যই ব্যাখ্যা করবেন। যদি কেউ ব্যাখ্যা না করেন তাহলে তিনি রোগীর অধিকার রক্ষা করলেন না। ১৯৪৮ সালের জেনেভা ডিক্লারেশন অনুযায়ী চিকিৎসক ও রোগীর কিছু অধিকার রয়েছে। চিকিৎসকের পাশে রোগী যখন চিকিৎসাপ্রার্থী হয়ে বসেন তখন তাদের মধ্যে অলিখিত একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। অর্থাৎ তারা পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধা রাখবেন। পরস্পরকে সমস্যা সম্পর্কে বিস্তারিত ব্যাখ্যা করবেন। তারা সৌহার্দ্যমূলক মানবিক আচরণ করবেন। যদি চিকিৎসক রোগীর প্রতি সে মনোভাব পোষণ না করেন তবে তিনি রোগীর অধিকার লঙ্ঘন করলেন। রোগীও চিকিৎসকের প্রতি তার দায়িত্ব বজায় রাখবেন।’

শুধু সরকারি হাসপাতালেই নয়, উন্নত চিকিৎসার জন্য অনেকে অর্থ খরচ করে যেসব বেসরকারি হাসপাতালে যান, সেখানেও রোগীদের অভিযোগ রয়েছে, তাদের চিকিৎসা, ওষুধ বা অপারেশনের ব্যাপারে ঠিকমতো অবহিত করা হয় না। এমনকি চেম্বারে চিকিৎসকরাও রোগীদের কথা ভালোভাবে না শুনেই চিকিৎসাপত্র দেন বলে অভিযোগ আছে। ঢালাও টেস্টের খরচে বেড়ে যায় চিকিৎসা ব্যয়। অনেক চিকিৎসক নির্দিষ্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে টেস্ট করাতে বলেন। কিংবা যেখানে তিনি রোগী দেখেন সেই ক্লিনিক থেকে টেস্ট করাতে বলেন। ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও বেসরকারি ক্লিনিক-হাসপাতালের আয়ের বড় উৎস এ টেস্ট। এ টেস্ট বাণিজ্য নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা হলেও এখন পর্যন্ত হয়নি কোনো নীতিমালা। কোনো টেস্টের সর্বোচ্চ-সর্বনিম্ন দামের কোনো নির্ধারিত মানদণ্ড না থাকায় রোগীদের কাছ থেকে ইচ্ছামতো দাম রাখছে বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো।

করোনা-পরবর্তী জটিলতায় ভুগছিলেন সাঈদা বেগম (৭৫)। কভিড নেগেটিভ হওয়ার পর থেকেই বেশ কিছু সমস্যা দেখা দেয় তাঁর। ছেলে তাঁকে রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হাসপাতালে নিয়ে যান। বাইরের ওয়েটিং রুমে বসিয়ে রেখে একের পর এক টেস্টের নমুনা নিতে থাকেন টেকনোলজিস্টরা। সাঈদা বেগমের ছেলে শরিফুল ভূঁইয়া বলেন, ‘মায়ের শারীরিক অবস্থা খারাপ থাকায় তাঁকে ভর্তির জন্য একাধিকবার রিসিপশনে গিয়ে বলি। কিন্তু তারা বলছেন “টেস্ট না করে আমরা ভর্তি করব না।” কর্মকর্তার কক্ষে গিয়ে অনুরোধ করলে বলেন “দুঃখিত, আমরা আসলে ঝুঁকি নিতে চাইছি না।” এভাবে প্রায় চার ঘণ্টা কেটে যায়। মা অস্থির হতে থাকেন। রোগীকে চেয়ারে বসিয়ে রাখা যাচ্ছে না। তাঁকে ভর্তি করে বেডে শুয়ে টেস্টগুলো করালে সমস্যা কোথায় ছিল সেটাই বুঝলাম না। ২৪ ঘণ্টা আগের কভিড নেগেটিভ সনদ আমরা সঙ্গে করেই এনেছিলাম। সেটাও তাদের হাসপাতাল থেকেই টেকনোলজিস্ট গিয়ে বাসা থেকে নমুনা নিয়ে এসে রিপোর্ট দিয়েছিলেন। আমরা তো বেড কিংবা কেবিন ভাড়া দিতে কার্পণ্য করিনি, কিংবা অগ্রিম চাইলেও দিতাম। পকেটের টাকা খরচ করেও যদি সেবা না মেলে তাহলে কার কাছে গিয়ে বিচার জানাব!’ চিকিৎসার জন্য ফের বিদেশমুখী ভিড় বেড়েছে। ভারত, থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন দূতাবাসে মেডিকেল ভিসার জন্য যাওয়া মানুষের ভিড় বাড়ছে। দেশের সরকারি হাসপাতালে অব্যবস্থাপনা, সংকট, প্রযুক্তিগত সীমাবদ্ধতা। বেসরকারিতে রয়েছে আস্থার সংকট, প্রতারণার ফাঁদ। উচ্চবিত্তের বিদেশ যাওয়ার প্রবণতাকে এসব কারণ আরও উসকে দিচ্ছে। ভালো সেবার আশায় মধ্যবিত্ত এমনকি নিম্নমধ্যবিত্তরাও ছুটছেন বিদেশ।

জানা যায়, উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রতি বছর দেশের বাইরে চলে যাচ্ছে হাজার হাজার কোটি টাকা। গত দুই বছর কভিড-১৯ সংক্রমণের কারণে বিদেশযাত্রায় ছিল নানা বিধিনিষেধ। ভারতের সঙ্গে স্থলপথে সীমান্ত দীর্ঘ সময় বন্ধ থাকায় যেতে পারেননি রোগীরা। সীমান্ত খুলতেই মেডিকেল ভিসা নেওয়ার ভিড় বেড়ে গেছে ভিসা সেন্টারগুলোয়। থাইল্যান্ড, সিঙ্গাপুরে যাওয়া রোগীর ভিড়ও ঊর্ধ্বমুখী। বাংলাদেশের বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের এক রিপোর্টে বলা হয়, প্রতি বছর বাংলাদেশিরা বিদেশে চিকিৎসা করতে গিয়ে প্রায় ২ দশমিক ৪ বিলিয়ন টাকা খরচ করেন। এ অর্থ বাংলাদেশের মোট আয়ের ১ দশমিক ৯৪ শতাংশ। একই চিকিৎসা বাংলাদেশে করতে যে ব্যয় হয় তা করতে ভারতে খরচ প্রায় দ্বিগুণ। থাইল্যান্ড ও সিঙ্গাপুরে ৩ থেকে ১০ গুণ বেশি। তবে দেশের হাসপাতালের বিল, কেবিন ভাড়াসহ আনুষঙ্গিক খরচাপাতি হিসাব করলে খরচ প্রায় কাছাকাছি হয়ে আসে। যার কারণে স্থানীয় হাসপাতালগুলোর প্রতি অনীহা বেড়েই চলেছে দিন দিন। ২০১৯ সালের এক প্রতিবেদনে দেখা যায়, ভারতে এক বছরে প্রায় ২২ লাখ বাংলাদেশি ভ্রমণ করেছেন। এর বড় অংশ চিকিৎসার জন্য গিয়েছিলেন।

ডা. লেলিন চৌধুরী আরও বলেন, ‘বিদেশমুখী চিকিৎসার অনেক কারণ রয়েছে। এর মধ্যে একটি মেডিকেল ট্যুরিজম। রোগী মনে করেন দূরবর্তী জায়গায় গেলে ভালো চিকিৎসা পাওয়া যাবে। নিউইয়র্ক থেকে লন্ডন যান, বাংলাদেশ থেকে কলকাতা যান, কলকাতা থেকে চেন্নাই যান চিকিৎসা করাতে। এটা থাকবেই।’

আমাদের দেশের চিকিৎসকের একটি অংশের মধ্যে রোগীর প্রতি দায়িত্বশীল আচরণের পরিবর্তে রোগীকে নির্দেশ দেওয়ার, আদেশ করার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। একজন মানুষ যখন অসুস্থ হয়ে চিকিৎসার জন্য যায়, এটা তার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না। চিকিৎসকের একটি অংশ রোগীকে পুরো বিষয়টি ব্যাখ্যা করেন না। চিকিৎসকদের চিকিৎসাবিজ্ঞান ও সমাজবিজ্ঞানের সমন্বয় ঘটিয়ে চিকিৎসা করতে হয়। কিন্তু আমরা অনেক সময় দেখি অনেক চিকিৎসকের রোগীর প্রতি আচরণ সঠিক হয় না। তাঁরা রোগীর প্রতি অমনোযোগী থাকেন। ফলে রোগীর মধ্যে আস্থাহীনতা তৈরি হয়। রোগীর সামাজিক মান, অর্থনৈতিক অবস্থা বুঝে রোগীর সঙ্গে তাঁর মতো করে আন্তরিক আচরণ করার কথা বলা হয়। চিকিৎসকের একটি অংশ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হচ্ছে। তাঁদের আচরণসহ পারিপার্শ্বিক বিষয়গুলো রোগীর ভিতরে বিদেশমুখী প্রবণতা তৈরি করে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
প্রযুক্তি সহায়তায়: রিহোস্ট বিডি