ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৩ নভেম্বর ২০২৩
  1. #সর্বশেষ সংবাদ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. উদ্যোক্তা
  6. কৃষি
  7. ক্যাম্পাস
  8. খেলা
  9. গণমাধ্যম
  10. জাতীয়
  11. দেশজুড়ে
  12. ধর্ম
  13. নারী ও শিশু
  14. পজিটিভ বাংলাদেশ
  15. প্রবাস

গাজায় শুক্রবার থেকে যুদ্ধবিরতি কার্যকর

bastobchitro
নভেম্বর ২৩, ২০২৩ ৯:৪৩ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ফিলিস্তিনের গাজায় হামাস ও ইসরায়েলের মধ্যে যুদ্ধবিরতি আগামীকাল শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) সকাল ৭টা থেকে কার্যকর হবে। যুদ্ধবিরতির মধ্যস্থজানা যায়, যুদ্ধবিরতিতে হামাস ৫০ জন জিম্মিকে ইসরায়েলের কাছে ফেরত পাঠাবে। শুক্রবার সন্ধ্যায় গাজা থেকে প্রথম দফায় ১৩ জিম্মিকে মুক্তি দিবে হামাস। যুদ্ধবিরতির মেয়াদ হবে চার দিন।

কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মাজেদ আল-আনসারি সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘শুক্রবার সকাল ৭টা থেকে যুদ্ধবিরতি শুরু হবে। ১৩ জন জিম্মি সন্ধ্যায় মুক্তি পাবেন। এই সময়ের মধ্যে জিম্মিদের মধ্যে যারা একই পরিবারের তাদের একত্রিত করা হবে। ৪ দিনের মধ্যে ৫০ জিম্মিকে মুক্তি দেওয়ার যে চুক্তি হয়েছে সেটি অনুযায়ী প্রতিদিন নতুন করে আরও বেসামরিক জিম্মিকে যুক্ত করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘গতকাল দিনব্যাপী যে আলোচনা হয়েছে সেটি আজ সকাল পর্যন্ত চলমান ছিল। এতে যুক্ত ছিল মিসর এবং যুদ্ধের অন্যান্য পক্ষগুলো। আলোচনা ভালোভাবে হয়েছে এবং আলোচনার পরিবেশ ইতিবাচক ছিল।’

কাতারি এ কর্মকর্তা আরো বলেছেন, ‘আলোচনার ফলাফল অবশ্যই ছিল যুদ্ধবিরতির চুক্তি পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা। আমরা সবসময় বলেছি এমন কিছু প্রয়োজনীয় যেটি বাস্তবসম্মত এবং জিম্মিদের মুক্তির ক্ষেত্রে একটি নিরাপদ পরিবেশ তৈরি করবে।’

তাকারী দেশ কাতার বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) এ তথ্য জানিয়েছে।মাজেদ আল-আনসারি বলেছেন, ‘আমাদের মূল লক্ষ্য হলো জিম্মিদের নিরাপত্তা। আমাদের লক্ষ্য থাকবে তারা নিরাপদে সেখানে পৌঁছাতে পারবে। জিম্মিদের গাজা থেকে মুক্তির বিষয়টিতে যুক্ত থাকবে রেডক্রস ও যুদ্ধের পক্ষগুলো।’

যুদ্ধবিরতিতে মানবিক সহায়তা সরবরাহের বিষয়টি থাকবে কিনা- প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘চুক্তির গুরুত্বপূর্ণ অংশ হলো ত্রাণ সরবরাহ। আমরা আশা করছি রাফাহ ক্রসিং দিয়ে দ্রুত সময়ে ত্রাণ সরবরাহ শুরু হবে। যদিও গাজায় যে পরিমাণ ত্রাণ প্রয়োজন সে তুলনায় এটি খুবই কম হবে। গাজায় অনেক মানবিক সহায়তা প্রয়োজন। এই চুক্তিতে আমাদের লক্ষ্য হলো একটি স্থায়ী যুদ্ধবিরতি। এ চুক্তিটি হলো পারস্পরিক। আমরা আশা করি যখন ইসরায়েলি জিম্মিদের মুক্তি দেওয়া হবে তখন ইসরায়েল থেকেও ফিলিস্তিনিদের মুক্তি দেওয়া হবে।’

এদিকে, হাসপাতালের বিভাগীয় প্রধান খালিদ আবু সামরা গণমাধ্যমকে জানান, আল-শিফা হাসপাতালের পরিচালক ডা. মোহাম্মদ আবু সালমিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে ইসরায়েলি বাহিনী। পাশাপাশি অন্যান্য বেশ কিছু চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে ইসরায়েল বাহিনীর কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সূত্র: বিবিসি ও আলজাজিরা।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।