ঢাকাশুক্রবার , ১০ জুন ২০২২
  1. #সর্বশেষ সংবাদ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. উদ্যোক্তা
  6. কৃষি
  7. ক্যাম্পাস
  8. খেলা
  9. গণমাধ্যম
  10. জাতীয়
  11. দেশজুড়ে
  12. ধর্ম
  13. নারী ও শিশু
  14. পজিটিভ বাংলাদেশ
  15. প্রবাস

ঋণনির্ভর বাজেট

ঢাকা অফিস
জুন ১০, ২০২২ ৫:৩৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

অর্থনীতিবিদরা বলছেন ‘সময়ের বাস্তবতা’

২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বিশাল ব্যয়ের বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। যা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ১৫ দশমিক ২ শতাংশ। একই সঙ্গে এই বিপুল ব্যয়ের এক-তৃতীয়াংশের বেশি আসবে ঋণ থেকে। সে হিসাবে চলতি অর্থবছরের তুলনায় আগামী অর্থবছরের বাজেট আরও বেশি ঋণনির্ভর হতে যাচ্ছে। যদি সরকারের ব্যয়ের চেয়ে আয় কম হয়, তাহলে তাকে ঘাটতি বাজেট বলে। সরকারি ব্যয় ও আয় সমান থাকলে সেটি সুষম বাজেট এবং ব্যয়ের চেয়ে আয় বেশি হলে তা উদ্বৃত্ত বাজেট। অর্থনীতিবিদরা এই ঘাটতি বাজেটকে ‘সময়ের বাস্তবতা’ বলে উল্লেখ করেছেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এটি বর্তমান সরকারের ২৩তম, বাংলাদেশের ৫১তম ও বর্তমান অর্থমন্ত্রীর চতুর্থ বাজেট। ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষভাগেও ভাবা হতো যে সরকার অর্থনীতিতে কম ব্যয় করে, কম আয় করে, সে সরকারই উত্তম। তবে সময়ের পরিক্রমায় সরকারি অর্থ ব্যবস্থাপনার সেই ধারণা ততটাই বদলেছে। এখনকার প্রবণতা হচ্ছে-যে সরকার বেশি আয়-ব্যয় করে, সেই সরকারই উন্নয়নবান্ধব। এ কারণে বিশ্বের বেশির ভাগ দেশ এখন ঘাটতি বাজেট করে থাকে, যেখানে সরকার আয়ের চেয়ে ব্যয় অনেক বেশি করে। তবে তার পরিমাণ সীমাহীন নয়। এর একটা মাত্রা থাকা উচিত। উন্নয়নশীল দেশগুলোর প্রেক্ষাপটে তা জিডিপির ৫ শতাংশের বেশি নয়।

প্রস্তাবিত বাজেটে আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের বিরাট ঘাটতি, যার পরিমাণ অনুদান ছাড়া ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা এবং অনুদানসহ ২ লাখ ৪১ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা। বাজেটের আকার অনুযায়ী এটি যথাক্রমে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) শতকরা ৫ দশমিক ৫ ভাগ, যা ঘাটতি বাজেটের সহনীয় মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। তবে এই ঘাটতির পরিমাণ ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে ছিল জিডিপির ৬ দশমিক ২ শতাংশ।

বিগত বছরগুলোয় বাংলাদেশের ঘাটতি বাজেট ৫ শতাংশের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। তবে করোনার কারণে গত দুই (২০২০-২১ ও ২০২১-২২) অর্থবছরে সেটি ৬ দশমিক ২ শতাংশের সীমাও ছাড়িয়ে যায়। সেটিকেও অর্থনীতিবিদরা সময়ের বাস্তবতা বলে মনে করেছেন।

এবার সেই অভিঘাত কিছুটা কমে এলেও ইউক্রেন-রাশিয়া পরিস্থিতির কারণে বিশ্বে নতুন করে শুরু হয়েছে অর্থনৈতিক অস্থিরতা। তার প্রভাবও পড়েছে বাংলাদেশে। ফলে দেশের মানুষের খাদ্যনিরাপত্তার ঝুঁকি এবং উচ্চ মূল্যস্ফীতি থেকে সুরক্ষা দেয়ার পাশাপাশি অভ্যন্তরীণ উৎপাদন, কর্মসংস্থান ও আয়বর্ধক উদ্দীপক কর্মসূচি নেয়া জরুরি হয়ে পড়েছে। তাই ঘাটতি বাজেটের উদ্দেশ্য স্পষ্ট হয়েছে অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তব্যের বিভিন্ন অংশের আলোচনায়। অর্থমন্ত্রী আশা করছেন, প্রস্তাবিত বাজেটের ঘাটতি মেটাতে চ্যালেঞ্জ থাকলেও বাস্তবায়ন পর্যায়ে তিনি তা সমন্বয় করতে সক্ষম হবেন।

বাজেট প্রণয়নে সংশ্লিষ্ট অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা মনে করেন, উদ্বৃত্ত বাজেট দেয়ার পর্যায়ে দেশ পৌঁছেনি। আবার সুষম বাজেট দিয়ে বর্তমান বিশ্বে টিকে থাকা সম্ভব নয়। তাই জনগণের জীবনযাত্রার মান ও মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি করতে হলে অর্থাৎ অর্থনৈতিক উন্নয়ন করতে হলে ঘাটতি বাজেটই শ্রেয়। উন্নয়নশীল দেশগুলোর ক্ষেত্রে সেটি আরও বেশি প্রযোজ্য।

ঘাটতি বাজেটের মাধ্যমে দেশের রাজস্ব নীতির লক্ষ্যগুলো বাস্তবায়িত হয়। বাণিজ্য চক্রের উত্থান-পতনের সঙ্গে সঙ্গে এ বাজেট প্রণয়ন করে অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা রক্ষা করা যায়। এ ছাড়া মূলধন গঠনের জন্য এ বাজেটের কোনো বিকল্প নেই। তা ছাড়া বিশ্বব্যাপী এখন মূল্যস্ফীতির ঝুঁকিতে আছে। ঘাটতি বাজেটে দেশের অব্যবহৃত সম্পদ ব্যবহৃত হয় এবং উৎপাদন ও নিয়োগ বৃদ্ধি পায়, যা মুদ্রাস্ফীতি বেড়ে যাওয়ার সেই সম্ভাবনাকে একটা স্তর পর্যন্ত প্রশমিত রাখতে পারে।

বাজেট পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, এবার ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা ব্যয়ের বাজেট বাস্তবায়ন করতে আয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ৪ লাখ ৩৬ হাজার ২৭১ কোটি টাকা। ফলে ঘাটতি বাজেট (অনুদানসহ) হবে ২ লাখ ৪১ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা। আর অনুদান ছাড়া ঘাটতির অঙ্ক দাঁড়াবে ২ লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। এ বছর বৈদেশিক অনুদান পাওয়ার আশা করা হচ্ছে ৩ হাজার ২৭১ কোটি টাকা। বৈদেশিক অনুদান পরিশোধ করতে হয় না। এ জন্য এটি সরকারের আয় মনে করা হয়।

এই ঘাটতি মেটাতে অর্থমন্ত্রী ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ১ লাখ ৬ হাজার ৩৩৪ কোটি টাকা এবং সঞ্চয়পত্র থেকে ৩৫ হাজার কোটি টাকা। বিদেশ থেকে ঋণ গ্রহণ করা হবে ৯৫ হাজার ৮৪৫ কোটি টাকা। অন্যান্য খাত থেকে ঋণ নেওয়া হবে ৫ হাজার ১ কোটি টাকা।

বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা ব্যয়ের বাজেটে আয়-ব্যয়ের মধ্যে ঘাটতি রাখা হয় অনুদানসহ মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৬ দশমিক ১ শতাংশ, যা টাকার অঙ্কে ছিল মোট ২ লাখ ১১ হাজার ১৯১ কোটি টাকা। এ ক্ষেত্রে অনুদান ব্যতীত এই ঘাটতি রাখা হয় মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ৬ দশমিক ২ শতাংশ, যা টাকার অঙ্কে ছিল মোট ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। সংশোধিত বাজেটে মোট ব্যয়ের আকার কাটছাঁট করে ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকায়। এতে করে শেষ পর্যন্ত বাজেট বাস্তবায়নে ঘাটতির আকারও কমে আসে। অনুদানসহ নতুন ঘাটতি দাঁড়ায় ২ লাখ ১ হাজার ৩০৮ কোটি টাকা, যা জিডিপির শতকরা হিসাবে এর ৫ দশমিক ১ শতাংশ এবং অনুদান ছাড়া ২ লাখ ৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা, যা জিডিপির শতকরা হিসাবে এর ৫ দশমিক ১ শতাংশ।

২০২০-২১ অর্থবছরে ৪ লাখ ৬০ হাজার ১৬০ কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেটে মোট ঘাটতির পরিমাণ ছিল অনুদানসহ ১ লাখ ২৯ হাজার ১৪৭ কোটি টাকা বা জিডিপির শতকরা হিসাবে ৪ দশমিক ২ ভাগ। অনুদান ছাড়া ঘাটতি প্রাক্বলন করা হয় ১ লাখ ৩১ হাজার ৪৯৫ কোটি টাকা, যা জিডিপির শতকরা হিসাবে ৪ দশমিক ৩ ভাগ।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।