1. rashidarita21@gmail.com : bastobchitro :
আত্মহত্যা ঠেকাতে রাউন্ড দ্য ক্লক : দুই মাসে ১০ জনকে রক্ষা | Bastob Chitro24
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৯:৫০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
বিজেপি ৪০০ পার করলে, পাক অধিকৃত কাশ্মীর ভারতের অংশ হয়ে যাবে ডেঙ্গু নিয়ে মিথ্যাচার করছেন মেয়র তাপস: সাঈদ খোকন বাজারভিত্তিক সুদহারে হস্তক্ষেপের ইঙ্গিত বাংলাদেশ ব্যাংকের কুষ্টিয়া জেলা শিল্পকলা একাডেমী কালচারাল অফিসার সুজন রহমানের পারিবারিক সংগঠনের সন্ধান ১৩৯ উপজেলায় দলীয় প্রতীকহীন ভোট আজ সহিত্যিক মীর মোশাররফ স্কুলের প্রাচীর সংস্কার হচ্ছে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে। সরকারি মালিকানাধীন ২৮টি শিল্পপ্রতিষ্ঠান লোকসানে চলছে হজের ভিসায় নতুন বিধি-নিষেধ জারি গুণী শিক্ষক মোসা. আখতার বানুর অবসজনিত বিদায় অনুষ্ঠান রাজশাহী ইউনিভার্সিটি এক্স স্টুডেন্টস এসোসিয়েশনের ক্যাপ বিতরণ

আত্মহত্যা ঠেকাতে রাউন্ড দ্য ক্লক : দুই মাসে ১০ জনকে রক্ষা

ঢাকা অফিস
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২২

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক লাইভে সম্প্রতি চলচ্চিত্র অভিনেতা রিয়াজের শ্বশুরের আত্মহত্যার ঘটনার পর নড়েচড়ে বসেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাইবার মনিটরিং সেল।
এর আগে গত ২রা ফেব্রুয়ারি রাতে ফেসবুক লাইভে এসে পিস্তল দিয়ে মাথায় গুলি চালিয়ে আত্মহত্যা করেন ধানমণ্ডিতে বসবাসরত ব্যবসায়ী আবু মহসিন খান। এ ঘটনার পর সিআইডি’র সাইবার মনিটরিং সেল আরও বেশি উদ্যোগী হয়ে ‘রাউন্ড দ্য ক্লক’ পদ্ধতিতে সাইবার জগতের নজরদারি বৃদ্ধিসহ তৎপরতা বাড়িয়েছে। গত দুই মাসে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি’র এই সাইবার মনিটরিং সেলের মাধ্যমে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে প্রায় ১০ জনের আত্মহত্যা ঠেকিয়ে জীবন রক্ষা করেছে।
ফেসবুকে বিভিন্ন সময়ে আত্মহত্যার পোস্টসহ বিভিন্ন বিষয়ে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে তথ্য পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সাইবার মনিটরিং টিম কখনো সরাসরি কখনো আবার স্থানীয় পুলিশকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়ে এসব মানুষের জীবন রক্ষা করেছে। পাশাপাশি কাউন্সিলিংসহ বিভিন্নভাবে তাদের জীবনের মোড় ঘুরিয়ে বেঁচে থাকার প্রেরণা যুগিয়েছে। এমনটিই জানিয়েছে সিআইডি’র সাইবার মনিটরিং সেল সূত্র। সিআইডি’র সাইবার মনিটরিং সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সাইবার মনিটরিং সেল ‘রাউন্ড দ্য ক্লক’ ২০১৮ সালে যাত্রা শুরু করে।

প্রায় ১৫০ সদস্যের একটি ডেডিকেটেড টিম ২৪ ঘণ্টা সোশ্যাল মিডিয়া, অনলাইন প্ল্যাটফরম, ওয়েবসাইটে এই মনিটরিং বা পর্যবেক্ষণের কাজ করে থাকে। এগুলোর মধ্যে ভেরিফায়েড পেজ, জনপ্রিয় ব্যক্তিত্বসহ নির্দিষ্ট কিছু পেজে সরাসরি মনিটরের পাশাপাশি টার্গেটকৃত সাইটগুলোতে নজরদারি করা হয়।
এ ছাড়া ফেসবুক আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের মাধ্যমে কে কখন সুইসাইডাল পদক্ষেপ নিচ্ছে, ফেসবুকে পোস্ট দিচ্ছে, ভিডিওতে আসছে এগুলো শনাক্ত করে। পরবর্তীতে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ অঞ্চল ভেদে সংশ্লিষ্ট ফেসবুক আইডিসহ প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো সিআইডি’র এই সাইবার মনিটরিং সেলের কাছে পাঠায়। ধানমণ্ডিতে ব্যবসায়ী আবু মহসিন খানের আত্মহত্যার কিছুদিন পরে মিরপুরে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী তার বাবার সঙ্গে মায়ের বিচ্ছেদ এবং মায়ের দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়টি মেনে নিতে না পেরে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। এ বিষয়ে ওই শিক্ষার্থী ফেসবুকে একটি পোস্ট লেখার পরপরই কর্তৃপক্ষ বিষয়টি সাইবার মনিটরিং সেলকে জানায়। তৎক্ষণাৎ ঘটনাস্থলে স্থানীয় থানা পুলিশ পৌঁছায়। এবং তারা তার জীবন রক্ষা করে। পরবর্তীতে তাকে মানসিক কাউন্সিলিংসহ বিভিন্নভাবে ইতিবাচক মোটিভেশন প্রদান করা হয়। ওই শিক্ষার্থী বর্তমানে অনেক ভালো আছে। এবং আত্মহত্যার চেষ্টার বিষয়টি তার ভুল পদক্ষেপ ছিল এটা এখন সে বুঝতে পেরে স্বাভাবিক জীবনে ফিরেছে। এখন সে সুন্দর একটি জীবনের স্বপ্ন দেখে। এ বিষয়ে সে পরবর্তীতে সোশ্যাল মিডিয়ায় সিআইডি’র এই মনিটরিং সেলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে একটি ভিডিও শেয়ার করে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এ ঘটনার পরপরই খুলনায় একটি ছেলে মধু খেয়ে ফেসবুকে পোস্ট লিখেছে। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ভেবেছে সে বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করছে। পরবর্তীতে ফেসবুক এ বিষয়ে মনিটরিং টিমকে তথ্য দেয়। কর্তৃপক্ষের পাওয়া তৎক্ষণাৎ নোটিফিকেশনের ফিডব্যাক হিসেবে স্থানীয় থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। এবং পরে জানতে পারে সে তার বান্ধবীকে প্রলুব্ধ করতে মধু খেয়ে বিষ খেয়েছে বলে পোস্ট লিখে। সম্প্রতি মিরপুরে বসবাসরত এক প্রবীণ ব্যক্তি হতাশা থেকে আত্মহত্যার পদক্ষেপ নেয়। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বিষয়টি জানালে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে বাসার দরজা ভেঙে ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে। এখন সে স্বাভাবিক জীবনের ফিরেছে। এবং নতুন করে বাঁচতে শিখেছে। চলচ্চিত্র অভিনেতা রিয়াজের শ্বশুরের আত্মহত্যার বিষয়টি তৎক্ষণাৎ বুঝতে পারেনি ফেসবুক। ফলে এ ঘটনার আগে মনিটরিং সেলকে কোনো নোটিশ বা তথ্য দেয়নি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। ঘটনা ঘটার আগে তথ্য পেলে হয়তো তাকে বাঁচানো সম্ভব হতো।
এ বিষয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি’র সাইবার ইন্টেলিজেন্স অ্যান্ড রিস্ক ম্যানেজমেন্ট বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার মো. রেজাউল মাসুদ মানবজমিনকে বলেন, ভার্চ্যুয়াল জগৎটি এত বিশাল যেটা সবসময় মনিটরিংয়ের মধ্যে আসতে নাও পারে। কেউ যদি পদক্ষেপ নেয় তার সুন্দর জীবনটা শেষ করে দিবে সেক্ষেত্রে খুব কম সময় পাওয়া যায় তাকে বাঁচানোর। ধানমণ্ডির আলোচিত ব্যবসায়ীর ফেসবুক লাইভে আত্মহত্যার পর এখন পর্যন্ত আমাদের এই মনিটরিং সেলটি প্রায় ১০ জন ব্যক্তিকে জীবন রক্ষা করেছে। এক্ষেত্রে ভবিষ্যতে এই ধরনের ঘটনা কমিয়ে আনতে আরও বৃহৎ পরিসরে আমাদের মনিটরিং বা নজরদারি ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। এতে খুব সহজে এবং কম সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ার আত্মহত্যার বিষয়ে তথ্য পাওয়া এবং পরবর্তীতে তাদের জীবন রক্ষা করা সম্ভব হয় বলে জানিয়েছেন ওই সিআইডি কর্মকর্তা।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
এই ওয়েবসাইটের লেখা ও ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।
প্রযুক্তি সহায়তায়: রিহোস্ট বিডি